গৃহ সজ্জায় কিছু নতুন মডেলের ফার্নিচার

কিছু নতুন মডেলের ফার্নিচার: গৃহ সজ্জার জন্য ফার্নিচার অতি প্রয়োজনীয় জিনিষ। ফার্নিচার ঘরের সৌন্দর্যকে বাড়িয়ে দেয়। ফার্নিচার ছাড়া আপনি অচল। এই যে রাতে ঘুমান, খাওয়া দাওয়া করেন, পড়াশুনা করেন সব কিছুতেই ফার্নিচারের দ্বারস্থ হতে হয়। এমনকি আপনার জামা কাপড়, শো-পিস সাজিয়ে রাখেন তার জন্যও ফার্নিচারের প্রয়োজন হয়। ফার্নিচার আমাদের জীবনের অংশ। ঘর সাজাতে অনেক রকম ফার্নিচার লাগে। কিন্তু দিন দিন আমাদের ফ্ল্যাটের আয়তন কমে যাচ্ছে। বাসা ভাড়া বৃদ্ধির কারণে অনেকের পক্ষেই ২/৩ রুমের বেশি ভাড়া নেওয়া সম্ভব হয় না। এসব কথা বিবেচনা করেই ফার্নিচার নির্মাতারা নিয়ে এসেছে আধুনিক ডিজাইনের মাল্টিপল ফার্নিচার। এই নতুন মডেলের ফার্নিচারে আপনি একটি দিয়েই অনেক কিছু করতে পারবেন। সোফাতে বসছেন সেটাকেই ছড়িয়ে দিয়ে দিব্যি ঘুমাতে পারবেন। তখন সেটা হয়ে যাবে বেড। এ রকম নতুন কিছু ফার্নিচার নিয়েই আজ আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি। তাহলে দেখা যাক কী সেসব ফার্নিচার যার এতগুণ।

সোফা কাম বেডঃ এই ফার্নিচারটি একইসাথে সোফা ও বেডের কাজ করবে। আপনি সঙ্কুচিত করে সোফা হিসাবে ব্যবহার করতে পারবেন। সেটাকেই আবার রাতের বেলায় ছড়িয়ে বেড বানিয়ে ফেলতে পারবেন। দিনে সোফা হিসাবে মিটিং রুমে ব্যবহার করলেন। আবার রাতের বেলায় সেখানেই বেডরুম বানিয়ে ফেলতে পারবেন। তাতে আপনার বাড়তি এক রুম নেওয়া লাগছে না। মাল্টিপল সুবিধা দেয় বলে এর নাম স্মার্ট ফার্নিচার। এই ব্যতিক্রমী সোফা কাম বেড দিয়ে অন্যকে চমকে দিতে পারেন।

কেবিনেট কাম বেডঃ এটাও একই সাথে কেবিনেট ও বেডের কাজ করে। সাধারণত কেবিনেট হিসাবে ব্যবহার হয়। তবে আপনি চাইলে সেটাকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে বেড বানিয়ে ফেলতে পারেন। তাতে করে আপনাকে বেডরুমের জন্য আলাদা রুম নিতে হবে না। একই সাথে দুই কাজের সুবিধা দেয় বিধায় এতে বেশি জায়গার প্রয়োজন হয় না। এইটা কিনলে আপনাকে আলাদা করে খাট কিনতে হবে না। ফলে দামেও সাশ্রয়ী।

চাইল্ড বেড কাম রিডিং টেবিল: বাচ্চাদের ঘুমানোর জন্য আমাদের মত এত বড় বিছানায় প্রয়োজন হয় না। তাদের উপযোগী চাইল্ড বেড আছে। কিন্তু কেমন হবে এই চাইল্ড বেডটিকেই যদি পড়ার টেবিল হিসাবে ব্যবহার করা যায়? শুনতে অদ্ভুত মনে হলেও চাইল্ড বেড কাম রিডিং টেবিল সেই সুবিধাই দিবে। যখন পড়ার দরকার তখন রিডিং টেবিল হিসাবে ব্যবহার করতে পারবেন, যখন ঘুমানোর দরকার তখন বেড হিসাবে ব্যবহার করতে পারবেন। রিডিং টেবিল বানানোর সময় সব কিছু গুটিয়ে নিয়ে ঠিক মত বসিয়ে দিলেই রিডিং রুম হয়ে যাবে। এমন চমৎকার সুবিধা সমন্বিত বেড আপনার সন্তানের মনেও প্রশান্তি এনে দিবে।

ফোল্ডিং ডাইনিং টেবিল: এই ডাইনিং টেবিলে অবশ্য উপরের গুলোর মত মাল্টিপল সুবিধা নেই। কিন্তু যে সুবিধা দিবে সেটাও আপনার বাসার স্পেস বাড়িয়ে দিবে। খাওয়া দাওয়া শেষ করে আপনি সেটাকে ভাঁজ করে এক জায়গায় ফেলে রাখতে পারবেন। ডাইনিং টেবিল যে বিশাল জায়গা দখল করেছিল তখন আপনি সেটাকে অন্য কাজে ব্যবহার করতে পারবেন। আবার যখন প্রয়োজন হবে তখন একইভাবে ডাইনিং টেবিল হিসাবে ব্যবহার করতে পারবেন। যে ডাইনিং এমন সুবিধা দেয় সেটা তো রাখা চাই ই।

ইনফ্লাটেবল সোফা: ফাইবার কাচের তৈরি ইনফ্লাটেবল সোফা। এই সোফা আপনি চাইলে সাথে করে পার্কেও নিয়ে যেতে পারেন। তারপর বাতাস ভরে ফুলিয়ে দিব্যি পার্কের মাঝে আয়েশী সোফা কিংবা বেড বানিয়ে নিতে পারবেন। ওজনে হালকা বিধায় সহজেই বহনযোগ্য। চাইলে বাসাতেও বেড হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন। ধরেন আপনার মন চাইল নদীতে নৌকায় ঘুরতে। সেখানে আরামদায়ক বিছানা কই পাবেন। তখন সহজেই এই ইনফ্লাটেবল সোফা নিয়ে যেতে পারবেন। চাইলে নৌকাটাও ইনফ্লাটেবল করে ফেলতে পারেন।

ওয়ার্ক স্টেশন: হালের নতুন ক্রেজ ওয়ার্ক স্টেশন। অফিসে ওয়ার্ক স্টেশন দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। ওয়ার্ক স্টেশন কাজের গতি বাড়ায়। ছিমছাম গোছানো পরিবেশ বলে সবারই কাজের প্রতি স্পৃহা বৃদ্ধি পায়। বর্তমানে প্রায় সব অফিসেই ওয়ার্ক স্টেশন বসানোর হিড়িক পরেছে। আপনিও কেন অন্যদের থেকে পিছিয়ে থাকবেন। আপনার অফিসে ওয়ার্ক স্টেশন স্থাপন করে কর্মীদের মনোবল চাঙ্গা করুন। জাস্ট ওয়ার্ক স্টেশনেই ডেস্ক, ফাইল কেবিনেট, ড্রয়ার, পেন হোল্ডার সবই আছে। একে অফিসের কাজে মাল্টি ইন ওয়ান বলা যায়। একের মাঝেই সব কিছু করতে পারবেন।

পুরানো খাট, আলমারি, টেবিল এখন স্মার্ট হয়ে যাচ্ছে। এক ফার্নিচার দিয়ে একই সাথে একাধিক কাজ করা যায়। এমনও সময় আসবে যখন এক ফার্নিচারেই সব কিছু করা যাবে। সব সময়ই হাল নাগাদের ফার্নিচার কিনুন। তবে উপরে যেসব ফার্নিচারের কথা বলেছি সেগুলো এখনও খুব বেশি মানুষের ঘরে যায় নি। সুতরাং আপনিও পারেন আপনার এলাকায় প্রথম স্মার্ট ফার্নিচারের মালিক হতে। কোন কিছুতে প্রথম হওয়া মানেই তো অন্য রকম অনুভূতি।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *